srityjala uwriter club

স্মৃতিজ্বালা

সময় আজ থেমে থাকে,
একাকী স্বার্থপরের মত।
ভাবনার নীল আকাশ জুড়ে-
জমে কালো মেঘ।

বৃষ্টি হতে চাই অবিরত।
কখনো ভাবিনি, চলার পথে আবার দেখা হবে।
কখনো ভাবিনি,তুমি আবার সামনে আসবে।
স্বার্থবাদী সময়গুলো সবকিছু কেড়ে নিলো
কপালে দুঃখের রাজটিক এঁকে দিলো।

চলার পথটা হলো এলোমেলো।
ঢাকা পড়েছে জীবনটা বেদনার নীল খামে,
সময়গুলো পাড় হয়, আজো তোমারি নামে।
ছিঁড়ে গেছে জীবন বীণার সবগুলো তার-
আসে না কোনো নতুন গানের ঝংকার।

চারিদিকে শুধু যে আঁধার!
এখন কেন,অপলকে চেয়ে থাকো?
কেন,অভিনয়ের দৃশ্যটা দু’চোখে আঁকো?
আজ তুমি ভুলে গেছো,তোমার দেয়া কথা
খুলেছো সব রাখিবন্ধন,ভুলেছো সব স্মৃতিকথা।

কেন, এখন এ ব্যাকুলতা!
এই’তো সেদিন,কিছুদিন আগে-
তখনও বাসতে ভালো,খুঁজে পেতে অনুরাগে।
ভাবনাতে শুধু আমাকে জড়াতে
অনুভবে শুধু আমাকেই খুঁজে নিতে-
স্বপ্ন রাখতে শুধু আমারি জন্য দুটি আঁখিপাতে।

এখন তোমার মনের আকাশে-
নেঁচে বেড়াই একদল সুখের প্রজাপতি।
থমকে থাকে আমার জীবন!
কেন,এতো দুঃখ দিলে আমার প্রতি?

আর সুখপাখি বিচরন করতে চাই না অনুমতি।
প্রতিটা মুহুর্ত, প্রতিটা সময়…
তোমারি ছায়ার সাথে, এ মন কথা কয়।
দিন আসে চলে যায়, তার নিয়মেই।
থেমে থাকা পথচলা, খোঁজে তোমাকেই
জানি না হবে তা পূরণ।

তুমি কি কাজল চোখে,আমার স্বপ্ন আঁকো।
নাকি উপহার দেয়া জিনিসগুলোতে চেয়ে থাকো??
অজানা বৃষ্টি এসে,দিলো আমাকে যে ভিজিয়ে-
দু’চোখে এত জল! কে দেবে তুষের আগুন নিভিয়ে।
হবে কখন যে মরন।

স্বার্থপর তোমাকে বলবো না-
বলবো না সেরা অভিনয়ের নায়িকা।
সবদোষ ছিলো আমার…
থাকবো সারাজীবন চাঁদের মত একা।

কি সহজে কথাগুলো বলে দিলে-
মাছের কাঁটার মত গলায় তা বাঁধে।
সবসময় এক পাল্লায় দোষ পরিমাপ-
করা যায় না।
এই অবস্থায় কেউ কি আসে নিজ স্বাদে।

আমিও চেয়েছিলাম,তোমাকে নিয়ে
দুরের তেপান্তরে ঘর বাঁধতে।
নতুন কোনো কল্পনার আলপনা-
দু’ চোখে তোমাকে নিয়ে আঁকতে।
সময় কখনো থেমে থাকে না…
মানে না সে কখনো নিয়মনীতি।
যার ফলশ্রুতিতে আজকে-
দুজনার নীরবে থাকার পরিনতি।

দিন আসে, রাতে আসে…
লাগে একদিন ঠিকই চাঁদে গ্রহন।
কেউ চাই না তার জীবনটা নদীর চরের মত হোক।
বর্ষায় ডুবে যাক,হোক আবার সবুজ বন।
অনুভবে আজও তুমি মিশে আছো এখন!

মিছেমিছে প্রলাপ বকে লাভ কী?
লাভ কি বলো,মরীচিকার পিছে ছুটে।
দুজন আজ দুই পৃথিবীর বাসিন্দা।
গেছে তা তোমার আমার মুখে রটে।
সেদিন কি দোষ আমার ছিলো-
সবকিছু গুছিয়ে আমি ছিলাম তৈরী।
কোথা থেকে এলো অজানা ঝড়
হয়েছিলো ভালোবাসার পরিবেশ বৈরী!

কেন এলে না, সেদিন কেন?
নিয়মের শিকল আমাকে আঁকড়ে ধরে যেন।
বলবো আজ সবই বলবো,সেদিনের কাহিনী
চাকরিতে যোগদান করতে হবে,আমি কি জানি!

চলে গেলাম সেদিনই চট্টগ্রামের পথে-
ঝরালাম এক নদী জল দুটি আঁখিপাতে।
তুমি কেন পারলে না আর কিছুদিন ধৈর্য্য করতে?
ধৈর্য্য! ধৈর্য্য! ধৈর্য্য!
শুনে আজ আনমনে হাসি পাই।
কখনো কি তারপরে নিয়েছো…
একটুও আমার খোঁজ।
জানতে চেয়েছো কি আমার মনের ভাষা?
চেয়েছো কি জানতে জমানো ভালোবাসা।

আর কিছু বলবো না-
যেখানেই থাকো, ভালো থেকো।
দূরের আকাশে হবো ধ্রুবতারা!
আমাকে মনে আর নাইবা রেখো।

About the Author অমৃত কুমার বিশ্বাস

বর্তমানে তিনি স্যার সলিমুল্লাহ মেডিকেল কলেজে ডেন্টাল বিভাগে অধ্যয়নরত রয়েছেন।

follow me on:

Leave a Comment: