অদ্ভুত সমাপ্তি

সেদিনের ভুলগুলো আজ আর ভুল মনে হয় না ওদের,ওরা বাঁচতে শিখে গেছে,হাসতেও। লাবণী এখন টুকুর মা। আর প্রতীক? সিংগার প্রতীক কে চিনেন না আপনি?
বেশকিছু বছর আগের কথা….
মিস.লাবণী সুন্দরীশ্রেষ্ঠা হিসেবেই কলেজে পরিচিত। প্রতীক বানী সিং হিসেবে । এক বছরের সিনিয়র হওয়ার কারনে লাবণী প্রতীককে Ragging করার কোনে সুযোগ ই হাতছাড়া করতো না। প্রতীত শান্তশিষ্টভাবেই সহ্য করে নিতো সবটা। প্রায় রোজই ছেলেটাকে এভাবে নির্যাতিত হতে হতো।

( পহেলা ফাল্গুন )
লাবণীর প্রথম নাচের পারফর্মেন্স, গান গাইবে প্রতীক।
তোমার জন্য নীলচে তারা একটু খানি আলো….
হঠাৎই কি যেন একটা পুড়ো গন্ধ লাগলো লাবনীর নাকে, ছুট্টে গেলো রান্নাঘরে যাক দুধটার পুরোপুরি বিসর্জন ঘটেনি। টুকু কে খাইয়ে আবার সেই গান, সেই নাচ, কলেজ,মাঠ,ক্যান্টিন চোখে ভাসতে লাগলো। লাবণী তার স্বামীর সাথে বেশ সুখেই আছে কিন্তু কিছু সময়ের জন্য হলেও প্রতীক তার জীবনে বার বার আগমন করে। প্রতীক তার জীবনে প্রতীকী হয়েই থাকলো……..
হঠাৎ ই মায়ের চেঁচামেচিতে ঘুম ভাঙলো লাবনীর।
চৌদ্দটা ফোন দিসি তোকে দরজা খোলার জন্য, এমন ঘুমও মানুষ ঘুমায়? কুম্ভকর্ণও ফেল…

যাক লাবণী র অস্থির মনটা একটু শান্ত হলো।
আজ সে আর প্রতীককে জ্বালাবে না, কিন্তু বলবে……..লাবনী আজ তার প্রথম ভালোবাসার কথা বলবে।

Leave a Comment: