সড়ক দুর্ঘটনা কমাতে হবে

সড়ক দুর্ঘটনা বর্তমান সময়ের একটি দৈনন্দিন সংবাদ।প্রায় প্রতিদিন পত্রিকার পাতা খুললে কিংবা টিভি চালু করলেই দেখতে পাই সড়ক দুর্ঘটনাজনিত প্রানহানির খবর।সাম্প্রতিক সময়ে ঈদকে কেন্দ্র করে এ দুর্ঘটনা আরও অনেকগুন বেড়ে গেছে এবং প্রতিদিন ঘটেই চলছে।একটি সড়ক দুর্ঘটনা কতগুলো মানুষের তাজা প্রানকে কেড়ে নেয়। অজস্র মানুষ সজনহারা হয়।যারা মারা যায় তাদের পরিবার গভীর সংকটের মধ্যে পড়ে আর যারা বেঁচে থাকে তাদের কেউবা হাতপা হারিয়ে পঙ্গু হয়ে গেছে কিংবা সৃতিশক্তি হারিয়ে পাগল হয়ে যাচ্ছে।শত শত মানুষের জীবনে অভিশাপ হয়ে আছে এই সড়ক দুর্ঘটনা। তারা আজ উৎপাদনশীলতা হারিয়ে কর্মক্ষম মানুষে পরিনত হয়েছে।পরিবার সমাজ ও রাষ্ট্রেরর বোঝা হয়ে তারা আজ দুর্বিষহ জীবনযাপন করছে।বাংলাদেশের মতো একটি জনবহুল দেশে সড়ক দুর্ঘটনার প্রবনতা অনেক বেশী।এর কারনগুলো অনুসন্ধান করলে আমরা বুঝতে পারি কেন আমাদের দেশে সড়ক দুর্ঘটনা বেশী ঘটছে।দেশে ফিটনেস বিহিন গাড়ী চলাচল নিষিদ্ধ থাকলেও সে আইন মানছে না অনেকেই।এসব ফিটনেসবিহীন গাড়ী সহজেই দুর্ঘটনায় পতিত হচ্ছে এবং অন্যদের দুর্ঘটনায় ফেলাচ্ছে।আমাদের দেশের অধিকাং ড্রাইভার অশিক্ষিত। এদের কেউ কেউ সড়কে চলার আইন কানুনগুলোর প্রতি শ্রদ্ধাশীল না।তারা বেপরজ ভাবে গাড়ী চালায়ি দুর্ঘটনার শিকার হচ্ছে।একটি দুর্ঘটনায় কত মানুষ ক্ষতিগ্রস্ত হতে পারে এই বোধটুকু তাদের মনে উদয় হয় না।অপরিকল্পিত নগরায়ন সড়ক দুর্ঘটনার আর একটি অন্যতম কারন। এর ফলে রাস্তা যেদিকে সেদিকে বাক নেয় যার জন্য দুর্ঘটনার পরিমান বেশী ঘটে। আমাদের দেশের অধিকাংশ রাস্তা প্রশস্ত না হওয়ার কারনে এবং প্রচুর পরিমান যানবাহন রাস্তায় চলাচলের ফলে যে কোন সময় দুর্ঘটনা ঘটে। অনেক সময় যানবাহনের মধ্যে পাল্লা দিয়ে কে আগে যেতে পারে এরকম মানুষিকতার জন্যে দুর্ঘটনার অনেক নজির আছে।আমাদের দেশে রাস্তাগুলো পরিকল্পিত ভাবে তৈরী না হওয়ার কারনে সড়ক মহাসরকের যেখানে সেখানে বাঁক নিয়েছে।এই বাঁকগুলো দুর্ঘটনার অন্যতম প্রধান কারন।যাত্রিদের রাস্তা পারাপারের জন্য ওভারব্রিজ বেশ গুরুত্বপূর্ন ভূমিকা পালন করতে পারে।তবে দুঃখের বিষয় এটা যে ওভারব্রিজ থাকার সত্ত্বেও আমরা অনেকে সেটা ব্যবহার করি না।এসব ক্ষেত্রে আইনের প্রয়োগ করা যেতে পারে তবে এক্ষেত্রে সচেতনতা সবচেয়ে বড় হাতিয়ার হিসেবে ব্যবহার করা যেতে পারে।রাস্তার অধিকাশ যাত্রি পরিবহন গুলোতে দেখা যায় ধারন ক্ষমতাধর কয়েকগুণ পরিবহণ করা হচ্ছে এবং চলাচলের সময় ড্রাইভার ফোনে কথা বলছে এটাও দুর্ঘটনার অন্যতম কারন।একটি গবেষনায় বলা হচ্ছে আমাদের দেশে প্রতিবছর সড়ক দুর্ঘটনায় যে পরিমান ক্ষতি হয় সে পরিসান অর্থ দিয়ে অনায়সে একটি পদ্মা সেতু গড়া সম্ভব।সড়ক দুর্ঘটনার ফলে যাত্রি, চালক,মালিক,পরিবার সমাজ দেশ সবাই ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে।তাই যতটা সম্ভব আমাদের এ বিষয়ে পদক্ষেপ হাতে নিতে হবে।সড়ক দুর্ঘটনা এমন একটি বিষয় যেটা বিশ্বের যে কোন দেশে শতভাগ বন্ধ করা সম্ভব নয় কিন্তু এটা অনেকাংশে কমানো সম্ভব।তাই সচেতনতা বাড়ীয়ে এবং প্রয়োজনী পদক্ষেপ গ্রহন করে আমরা অনেকাংশে সড়ক দুর্ঘটনা রোধ করতে পারি।

Leave a Comment: