ছয়টাও যা, সাতটাও তাই

 

ক্লাসে শুরুর আগে সবাই বসে আছি। হঠাৎ মহিদুল স্যার ক্লাসে ঢুকলেন। কিন্তু স্যারের মুখে আজ সেই চিরচেনা হাসি নেই। চেহারা কিছুটা গম্ভীর।

 

ঢুকেই তিনি সকলের উদ্দেশে বললেন, ‘শোন, আজ তোদের একটা কথা বলব।’

 

‘বলেন স্যার।’ সমস্বরে সব শিক্ষার্থী।

 

‘তোরা কি জানিস, ২০১৭ সাল থেকে তোদের সাতটা সৃজনশীল লিখতে হবে?’

 

‘না তো স্যার!’ সবাই হতভম্ভ হয়ে বললাম।

 

স্যার তখন আমাদের বিশদভাবে বুঝিয়ে বললেন। ক্লাসের সবার মাথায় হাত, একমাত্র শাবিব ছাড়া।

 

স্যার তখন শাবিবের দিকে চেয়ে বললেন, ‘কী রে হতচ্ছাড়া, সবার মাথায় হাত। আর তুই কি না মুচকি হাসি দিচ্ছিস?’

 

শাবিব তখন হাসি থামিয়ে বলল, ‘স্যার আমার তো ছয়টাও যা, সাতটাও তা।’

 

স্যার অবাক হয়ে বলেন, ‘কীভাবে?’

 

‘স্যার আমি তো সব পরীক্ষাতেই প্রায় সাদা খাতাই জমা দিই। তাই তো আমার কাছে ছয়টা-সাতটার তফাত্ নেই।’

About the Author ফাতিন ইসরাক আবির

follow me on:

Leave a Comment: