রানী এলিজাবেথের বই পড়ার গল্প

 

ইংল্যান্ডের বর্তমান রানী দ্বিতীয় এলিজাবেথের জন্মদিনে একটি বই উপহার দিলেন তার দেশের এক মন্ত্রী। রানী বই পড়তে ভালবাসেন এটা বিশ্বব্যাপী স্বীকৃত। এক অবসরে তিনি যখন সেই বইটি পড়তে শুরু করলেন তখন মুগ্ধ বিস্ময়ে হতবাক হয়ে গেলেন। একবার দুবার বার বার পড়লেন বইটা। যাদুকরের যাদু যেমন আকৃষ্ট করে তেমনি সেই বইটিও তাকে আকৃষ্ট করলো।

রানী সেই মন্ত্রীকে আদেশ দিলেন বইয়ের লেখককে রাজপ্রাসাদে আমন্ত্রন জানাতে এবং রানীর সাথে মধ্যাহ্নভোজে অংশ নিতে। রানীর আদেশ মত মন্ত্রী সংবাদটি দিলেন সেই লেখককে। রানী নিজে তাকে রাজপ্রাসাদে দাওয়াত করেছেন!!!! বিস্ময়ে তিনি যেন বাক হারা হয়ে গেলেন। তার পর যথাসময়ে হাজির হলেন বাকিংহাম প্যালেসে। রানীর সাথে সেটাই ছিল তার প্রথম সাক্ষাত। রানী দ্বিতীয় এলিজাবেথ তার বইয়ের প্রসংশায় পঞ্চমুখ।

 

মহারানী এবার লেখককে বললেন আমি আপনার বই পড়ে এতোই মুগ্ধ হয়েছি যে আমি চাই আপনার লেখা সব বই এক নিমিষে পড়ে শেষ করবো। লেখক আমতা আমতা করে কিছু বলতে চাইলেন। তার লেখা অগণিত বই ছিল তার পরও তিনি জানালেন মহামান্য রানী আমার বাকি বইগুলোর একটাও আপনার ভাল লাগবেনা এটা আমি লিখিত দিতে পারি। রানী তার কোন কথাই শুনলেন না। তিনি বললেন ভাল লাগবে কি লাগবেনা সেটা আমি বুঝবো আপনি আপনার লেখা বাকি সব বই পাঠান। লেখকদের আসলে এভাবেই কথা বলতে দেওয়া হয়না কিংবা লেখকদের কথা সবাই মন দিয়ে শোনেওনা।

রানীর আদেশ মত সেই মন্ত্রী লেখকের সাথে তার বাসায় গিয়ে লেখকের বাকি সব বই নিয়ে আসলেন রাজপ্রাসাদে। নৈশভোজ শেষে রানী সবাইকে বললেন এখন তিনি একাধারে বই পড়বেন এবং এই সময়ে তাকে যেন কেউ বিরক্ত না করে। রানীর আদেশ আজ্ঞাবহ হিসেবে সবাই মেনে নিলো।

দশ মিনিটের মধ্যেই রানী তার পড়ার ঘর থেকে বেরিয়ে আসলেন। তখন প্রায় মধ্যরাত। লেখক নতুন লেখায় মন দিতে যাচ্ছেন। রানী আদেশ দিলেন এখনি ওই লেখককে রাজপ্রাসাদে নিয়ে আসো এবং অবশ্যই স্বসম্মানে।

 

সেই রাতেই লেখক আবার এলেন রাজপ্রাসাদে রানীর সামনে। কেউ কিছু বুঝতে পারেনি তখনো কিন্তু লেখক নিজে জানেন আসলে কি হয়েছে।

রানী আক্ষেপ নিয়ে বললেন আপনার ওই বইটা এতো অসাধারণ ছিল যে আমি বিশবারের বেশি পড়েছি তাই আগ্রহ ছিল আপনার বাকি বই গুলোও পড়বো। কিন্তু বাকি বই গুলোর নামও পড়তে বিরক্ত লেগেছে।

লেখক বিনীত ভাবে জানালেন মহামাননীয়া রানী আমি আপনাকে আগেই বলেছিলাম আমার বাকি বই গুলোর কোনটাই আপনার ভাল লাগবে না।

 

——————————————–

বইটি যিনি লিখেছিলেন তিনি বিশ্ব বিখ্যাত একজন লেখক। তিনি ছিলেন ইংল্যান্ডের অন্যতম শ্রেষ্ঠ একজন গণিতবিদ। তিনি মাত্র একটি গল্পের বই লিখেছেন যা বিশ্বব্যাপী অত্যন্ত জনপ্রিয়। হলিউডের প্রখ্যাত অভিনেতা জনিডেপ তার সেই গল্পের প্লটে নির্মিত সিনেমায় অসাধারণ অভিনয়ও করেছেন। এই লেখক এর পর যত বই লিখেছেন তার সবই ছিল গণিতের উপর। তাই রানী এলিজাবেথের তা পড়া হয়নি। লেখকের নাম লুইস ক্যারোল। আর বইটার নাম এলিস ইন ওয়ান্ডার ল্যান্ড।

=======================================

About the Author জাজাফী

লেখক হয়ে জন্ম নেইনি, লেখক হতেও নয়। তবু আমি লেখক হলে, সেটাই হবে ভয়। জাজাফী এমন একজন যার অতীত এবং ভবিষ্যৎ জানা নেই, বর্তমানই সব।

follow me on:

Leave a Comment: